হৃদরোগের কারণ

প্রস্তাবনা

করোনারি হৃদরোগ গোটা পৃথিবীতে মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ। ভারতে এ রোগ দ্রুত বাড়ছে। এ রোগ হার্টের ধমনীগুলোর তলদেশে কোলেস্টেরল ও ফ্যাট জমে ব্লকেজ বা অবরোধ সৃষ্টি হওয়া। ফলে ধমনীগুলোয় রক্তের প্রবাহে বাধা সৃষ্টি হয়। ধমনীগুলোতে ক্লট জমে হার্টে রক্ত, অক্সিজেন ও নিউট্রিশন পৌঁছবার কাজে বিঘœতা ঘটে। ৬০ থেকে ৭০ শতাংশেরও বেশি অবরোধের কারণ, হার্টে বেড়ে ওঠা রক্তের চাহিদার পূরণ না হওয়া। ফলে বুকে যন্ত্রণা হতে থাকে। সেই যন্ত্রণা বাঁ দিকে নিচের দিকে নামতে থাকে। আর এই যন্ত্রণার অনুভূতিকে প্রধানত অ্যানজাইনা বলে। এতে ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। এ বিষয়ে যদি মনোযোগ না দেওয়া হয়, তবে পরিণাম ঘাতক হতে পারে। আজ এ প্রমাণিত সত্য যে, অপরিকল্পিত জীবনযাপন ও খাদ্য-অভ্যাসের কারণে হার্টের ধমনীগুলোতে কোলেস্টেরল ও ফ্যাট জমে ব্লকেজ বা অবরোধ সৃষ্টি হয়। এ-ও প্রমাণিত যে, এগুলো লাগাতার তীব্র গতিতে জমা হতে থাকে। সংকটের কারক- সংকটের কারক হচ্ছে সেই কারণ, যার ফলে ধমনীগুলোয় কোলেস্টেরল আর ফ্যাট জমা হতে থাকে। করোনারি হৃদরোগ হবার এবং বেড়ে ওঠার অনেকগুলো কারক আছে। যখন বালতিতে বারোটা ছিদ্র হয়ে পড়ে, তখন বালতিতে জল ভরার জন্য প্রথমে সব ছিদ্র বন্ধ করতে হবে। এ বিধি হৃদরোগের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। হৃদরোগকে শেষ করার জন্য হৃদরোগের সব কারককে নিয়ন্ত্রিত করতে হবে। ১৯৮১ সনে ডা. উইলিয়ামস ২৪৬টি কারক বা রিস্ক ফ্যাকরের বিষয়ে জানতে পেরেছিলেন, যেগুলো প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে হৃদরোগের উৎপত্তি ও বেড়ে ওঠার জন্য দায়ী। এসব কারকের বিবরণ এরকম-
ক) অভ্যাস এবং জীবনপদ্ধতি, মনোসামাজিক
খ) শারীরিক এবং জীব বৈজ্ঞানিক
গ) রক্ত এবং রক্তের অনুপাত
ঘ) ডাক্তারী অবস্থা এবং অসুস্থতা
ঙ) কম আহার
চ) বেশি আহার
ছ) শারীরিক গঠন এবং জনসংখ্যার অভাব
জ) রক্তের জমা এবং অন্যান্য উপব্যবস্থা
ঝ) পরিবেশ
ঞ) ওষুধ
এ রোগ বেড়ে ওঠার জন্য প্রধানত দায়ী এরকম ১০ বা ১৫টি কারক নিয়ে চিন্তাভাবনা করলে কারকগুলোকে দুই শ্রেণিতে ভাগ করা যেতে পারে। এক. পরিবর্তনীয় সংকটের কারক এ শ্রেণির কারককে পরিবর্তন করা বা বেড়ে ওঠাকে থামানো যেতে পারে। ফলে হৃদরোগের ক্রমবর্ধমান গতিতে বাধা পড়ে। যেমন-
১. মানসিক চাপ
২. রক্তে কোলেস্টেরলের উচ্চ স্তর
৩. রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইডের উচ্চ স্তর
৪. রক্তের এইচডিএল স্তর কম হওয়া
৫. আহারে এন্টি-অক্সিডেন্টসের অভাব
৬. উচ্চ রক্তচাপ
৭. ডায়াবেটিস
৮. অতিওজন বা বেশি শারীরিক ওজন
৯. শারীরিক শ্রমের অভাব
১০. ধূমপান ও তামাক সেবন দুই. অপরিবর্তনীয় সংকটের কারক এ শ্রেণির কারককে পরিবর্তন করা যায় না। যেমন-
১. আয়ু
২. লিঙ্গ
৩. বংশ